ফটোগ্রাফিবই

বুকস্টাগ্রাম – অন্যরকম এক বইয়ের জগৎ

ইনস্টাগ্রাম সম্পর্কে তো আমরা সবাই জানি। কিন্তু বুকস্টাগ্রাম সম্পর্কে কয়জন জানি? ইনস্টাগ্রামে বইয়ের ছবি দেওয়া, বই নিয়ে আলোচনা করার জন্য যে অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করা হয় তাকে বুকস্টাগ্রাম বলে। অর্থাৎ, বই কেন্দ্রীক যেসকল ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট সেগুলোকেই বলা হয় বুকস্টাগ্রাম। তাহলে যারা এই অ্যাকাউন্টগুলো চালায় তাদের কী বলবো? বুকস্টাগ্রামার! বুকস্টাগ্রামকে আমরা ইনস্টাগ্রামের একটি বইপ্রেমীদের কমিউনিটি বলতে পারি, যেখানে বুকস্টাগ্রামাররা বইয়ের নান্দনিক সব ছবি শেয়ার করে। এছাড়াও বই রিভিউ থেকে উদ্ধৃতির জন্যেও বুকস্টাগ্রাম বর্তমানে একটি জনপ্রিয় বিষয় হয়ে উঠেছে।

বুকস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট তৈরির জন্য প্রথমে একটি মানানসই ইউজার নেইম প্রয়োজন। মানানসই বলতে এমন সব নাম যা দেখে আপনাকে একজন বইপ্রেমী বলা যায়। ইনস্টাগ্রামে বায়ো বলতে একটা জিনিস আছে যেখানে ১৫০ অক্ষরের মধ্যে নিজের সম্পর্কে লিখতে হয়। সেখানে আপনি লিখতে পারেন আপনার সম্পর্কে, বর্তমানে কোন বইটি পড়ছেন, গত বছর কয়টি বই পড়েছেন কিংবা এবছরে বই নিয়ে আপনার টার্গেট। এরপর সোশাল লিংকসহ প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে তৈরি করে ফেলুন আপনার বুকস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট। বুকস্টাগ্রামে ইউজার নেইম ও বায়ো দুটোই কিন্তু যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ।
অ্যাকাউন্ট খোলা শেষ?

চলুন তবে এবার বুকস্টাগ্রাম কমিউনিটিতে বন্ধু বানানো যাক। এজন্য আপনি ভালো বুকস্টাগ্রামারদের ফলো করা শুরু করুন। আপনি তাদের ফিডে ঘুরে দেখতে পারেন বা তাদের পোস্টে লাইক করতে পারেন। বুকস্টাগ্রামাররা Question Of The Day বা QOTD করে থাকেন। সেখানে কমেন্টে আপনি উত্তর দিতে পারেন। এছাড়াও তাদেরকে আপনি কে এবং বুকস্টাগ্রামে যে নতুন তা লিখে মেসেজ করতে পারেন। আপনি যদি একটু সাহসী অনুভব করে থাকেন তবে আপনি তাদের কাছে বিভিন্ন টিপসও চাইতে পারেন। কিন্তু কখনই তাদের ফলো ব্যাক করতে বলবেন না। এটি বুকস্টাগ্রামারদের জন্য খুবই বিরক্তিকর এবং অপমানসূচক।

এতক্ষণে আপনার নিশ্চই কিছু বুকস্টাগ্রামের ফিড দেখা হয়েছে। আপনি কি লক্ষ করেছেন প্রত্যেক বুকস্টাগ্রামারেরই কিন্তু একটি নিজস্ব থিম রয়েছে? এটা খুবই ট্রেন্ডি। এটি একটি সুন্দর ও নান্দনিক লুক তৈরি করে। একটা উদাহরণ দেই। ধরুন কোনো বুকস্টাগ্রামার তার ছবিতে সাদা-কালো ইফেক্ট পছন্দ করে। এই সাদা-কালোই তার বুকস্টাগ্রামের থিম। একটি সুন্দর থিম মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করর। এতে মানুষ আপনাকে ফলো করার জন্য আগ্রহী হয়। তাই পোস্ট করার আগে ভেবে নিন কী হবে আপনার বুকস্টাগ্রামের থিম। তবে কোনো থিম ছাড়া যে আপনি বুকস্টাগ্রামার হতে পারবেন না এটা কিন্তু সত্যি নয়।

আপনি কি উপরের ধাপগুলো অনুসরণ করেছেন? তবে তৈরি হয়ে নিন আপনার প্রথম বুকস্টাগ্রাম পোস্টের জন্য।
ছবি তোলার জন্য ক্যামেরার প্রয়োজন। কিন্তু তা যে দামী হতে হবে এমন কোনো কথা নেই। কিন্তু পরিষ্কার ছবির জন্য একটি ভালো ক্যামেরার প্রয়োজন যার জন্য আপনার স্মার্টফোনই যথেষ্ট। ছবি তোলায় আলোর কিন্তু বেশ প্রভাব আছে। আপনি যদি ন্যাচারাল আলো ব্যাবহার করতে চান তবে একটু চেষ্টা করবেন আপনার ছবিগুলো যেন দিনের একটা নির্দিষ্ট সময়ে তোলা হয়। এতে ছবিগুলোতে আলোর প্রভাব অনেকটা এক থাকবে। কীভাবে ছবি তুলবেন ভাবছেন? বিষয়টা অত কঠিন না। ছবি তোলার সময় নানা রকম আনুষঙ্গিক জিনিস ব্যবহার করা হয়। যেমন- কাপ, প্লেট, ফুল, পাতা, আয়না, বয়াম, ঘড়ি, চুড়ি, বোতাম, পেন্সিল, কলম, মগ, কানের দুল ইত্যাদি। এসব জিনিস নানা রঙ্গে-ঢঙ্গে সাজিয়ে তুলে ফেলুন আপনার মনের মত ছবি।

ছবি তোলার পর আসে এডিটিং এর পালা। ইনস্টাগ্রামেই আপনি দারুণ দারুণ সব ফিল্টার আর এডিটিং এর অপশন পেয়ে যাচ্ছেন। ইনস্টাগ্রাম ছাড়াও আপনি বিভিন্ন এডিটিং এর অ্যাপস বা সফটওয়্যার ব্যবহার করতে পারেন। ছবি এডিট করা আবশ্যিক নয় তবে এটা ছবিকে একটা বেটার লুক দেয়।

সব কিছুই তো রেডি। এবার পোস্টিং এর পালা। প্রথমবার যেহেতু পোস্ট করছেন তাই কিছু বিষয় আপনার মাথায় রাখা উচিত। যেমন- বুকস্টাগ্রাম কিন্তু একধরনের বুক ব্লগিং। তাই পোস্টে কিছু সংক্ষিপ্ত বর্ণনা রাখা প্রয়োজন। সেখানে আপনি আপনার সম্পর্কে, ছবির বই কিংবা লেখক সম্পর্কে লিখতে পারেন। আরেকটি বিষয় মাথায় রাখা উচিত। আর সেটা হলো হ্যাশট্যাগের ব্যবহার। হ্যাশট্যাগ আপনার পোস্টকে মানুষের কাছে পৌছাতে সাহায্য করে। তাই পোস্টের শেষে হ্যাশট্যাগ দিতে ভুলবেন না। একটা মজার বিষয় কি জানেন? আপনার পোস্টে আপনি যতখুশি হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করতে পারেন এবং এক্ষেত্রে কেউই কিন্তু চোখ ঘোরাবে না। কিছু জনপ্রিয় হ্যাশট্যাগের মধ্যে রয়েছে : #bookstagram #bookgram #bookish #booklover

শেষে একটা ছোট্ট টিপ্স: একটা নির্দিষ্ট সময়ে পোস্ট করুন আর পোস্ট করার পাশাপাশি ফলোয়ারদের সাথেও যোগাযোগ রাখুন।

এছাড়াও আপনার সাধের ইন্সটাগ্রাম একাউন্টটি জনপ্রিয় করার জন্য পড়ে দেখতে পারেন এই আর্টিকেল দু’টো। আর্টিকেল পড়তে ক্লিক করুন এখানে –

ইন্সটাগ্রাম মার্কেটিং, প্রথম পর্ব

ইন্সটাগ্রাম মার্কেটিং, ২য় পর্ব

হরেক রকম বইয়ের সাজ

একটি সাধারণ বইকে নান্দনিক ভাবে আমাদের কাছে তুলে ধরেন বুকস্টাগ্রামাররা। অনেকের ভাষ্যমতে এতে অনেকে বই পড়তে অনুপ্রাণিত হয়। তবে হ্যাঁ “Don’t judge a book by it’s cover” নীতিতেও তারা বিশ্বাসী। বুকস্টাগ্রামাররা বেশিরভাগ খুব ফ্রেন্ডলি হয়ে থাকে। তারা নতুনদের খুব পছন্দ করে। তারা একে অন্যকে সাহায্য করে আর অনুপ্রেরণায় দেও। আপনি যদি কোনো লেখক হয়ে থাকেন তবে বুকস্টাগ্রাম আপনার বইয়ের প্রচারে সাহায্য করতে পারে। তবে অনেক বুকস্টাগ্রামাররাই মনে করেন এটি ঠিক না। আগেই বলেছি, বুকস্টাগ্রামাররা শুধু বইয়ের ছবিই তোলেন না, সেই সাথে বইও পড়েন এবং বই নিয়ে আলোচনা করেন। তাই বুকস্টাগ্রাম বইপ্রেমীদের জন্য খুব ভালো একটু প্ল্যাটফর্ম।

এই রকম আরো পোস্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close