অন্যান্য

নিফিউ পাড়ার ভৌতিক গল্প

 

নিফিউ পাড়া মুরংদের একটি গ্রাম। এটি বাংলাদেশ- মিয়ানমার সীমান্তে নো ম্যান্স ল্যান্ডে অবস্থিত সবচেয়ে উঁচু ও দুর্গম একটি গ্রাম। জিপিএস এর হিসাব অনুযায়ী, প্রায় ২৭০০ ফুট উপরে অবস্থিত চমৎকার এই নিফিউ পাড়াকে দেখলে যে কারোর মনে হবে এটি নিশ্চয়ই পৃথিবীর বাইরের কোন জায়গা।
তবে অপরূপ এই গ্রামকে ঘিরে বেশ কিছু ভৌতিক কাহিনী প্রচলিত আছে। গ্রামের মানুষদের মতে, প্রতিবছরই হঠাৎ একদিন অজানা কারণে বনের ভেতর থেকে বিচিত্র শব্দ শোনা যায় । এই শব্দ শুনেই গ্রামের সবাই আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়ে। সবার ধারণা, এই শব্দের পেছনে কোন পিশাচের বা ভূতপ্রেতের কারসাজি রয়েছে । এই শব্দ শোনামাত্র বনের ভেতরে থাকা কাঠুরিয়া কিংবা শিকারীদল উর্ধ্বশ্বাসে প্রাণ নিয়ে ছুটতে থাকে। তারা প্রত্যেকে বন থেকে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করে। কিন্তু প্রতিবছরই তাদের এক-দুইজন আটকে যায়। তারা আর কোন দিন গ্রামে ফিরে আসে না। কয়েকদিন পরে বনের মাঝে তাদের কারোর না কারোর মৃতদেহ আবিষ্কার হয়। কিন্তু সারা শরীরে কোন আঘাতের চিহ্ন খুঁজে পাওয়া যায় না। শুধু চেহারায় ভয়ঙ্কর আতঙ্কের ছাপ স্পষ্ট বোঝা যায় । কিন্তু কি দেখে ভয় পেয়েছে, আর কিভাবে কোন ক্ষতচিহ্ন ছাড়া মারা গেছে, এখনো গ্রামের মানুষেরা এ রহস্যের সমাধান করতে পারেনি।

আবার,অনেকে এই গ্রামে মৃত চিতাবাঘের ছাল পাওয়ার বা দুপুর ১২টায় বুনো দাঁতালো শুকর, ময়ূর দেখার বা দিনের বেলাতেই বার্কিং ডিয়ার আর ভাল্লুকের ডাক শুনেছে বলে দাবি করে।
যদিও আজ পর্যন্ত এসব ঘটনার কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তি খুঁজে পাওয়া যায় নি এবং এসব ঘটনার কোনো সমাধানও হয়নি।

উৎস:গুগল

টপিকঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close