রাইটার্স ক্লাব স্পেশাল

ছোটরা কী করবে?

শিইইট! আবারও হেরে গেলাম”, বলে ফোনটা বিছানায় ছুঁড়ে মেরে মুখটা কুমড়ার মতো বানিয়ে বসে ছিল অপু। ঠিক এমন সময় ছোট ভাই দীপু এসে বলল, ভাইয়া দেখতো মোটু পাতলুর এই ছবিটা কেমন হয়েছে? আমি এঁকেছি। বলেই সে দাঁত বের করে একটু হাসার চেষ্টা করলো। কিন্তু সেটা সফল হলো না কারণ ওর উপরের পাটির দুটো দাঁত সদ্যই পড়েছে! ছবিটার দিকে এক নজরও না তাকিয়ে ঠান্ডা রুটির মতো কড়কড়ে গলায় অপু বলল, যা তো সামনে থেকে একদম বিরক্ত করবি না। নিমেষেই ছোট্ট দীপুর উৎসাহ শুন্য ভোল্টেজে নেমে এলো, সে সরে এলো ভাইয়ার কাছ থেকে। এদিকে অপু ‘লুডু’ গেইমে হেরে যাওয়ার শোকে আবারও মুখ কুমড়া বানিয়ে ফেললো। এই নিয়ে ১৭ বার সে মাইশার ইনভাইটে লুডু খেলে হারলো, মেজাজ তো খারাপ হবেই! 

এই কোয়ারেন্টাইনে আমাদের মতো টিনএজারদের একমাত্র সাথী ইন্টারনেট। কিন্তু ভেবে দেখেছো কি ছোটরা ঘরে বসে এই বোরিং সময়টা কিভাবে পার করছে? চাইলেই কিন্তু ওদের একটু সময় দিতে পারি আমরা, মোটু পাতলু দেখা ছাড়াও আরো অনেক ইন্টারেস্টিং কাজের সাথে পরিচয় করাতে পারি। চলো দেখে আসি কী হতে পারে সেগুলো: 

কাগজের বাক্স দিয়ে কিছু বানানো :

জুতার বাক্স থেকে মোবাইলের বাক্স, এসব ফেলে দেয়া জিনিসপাতিই হতে পারে তোমার কাজের জিনিস। এগুলো দিয়ে মজার কিছু বানিয়ে দাও, বিচিত্র আইডিয়া পেতে সাহায্য নাও ইউটিউবের।

অল্প স্বল্প রান্না-বান্না

ছোট ভাই বোনকে সাথে নিয়ে কাপকেক কিংবা পুডিংয়ের মতো ছোটখাটো রান্না করে ফেলতে পারো। ট্রেন্ড ফলো করে ডালগোনা কফি বা জিলাপি ও বানিয়ে ফেলতে পারো। 

ছবি আঁকা

ধরো, তোমার ছোট ভাই/বোন একটা হাতির ছবি এঁকে নিয়ে এলো ( যদিও সে উল্লেখ না করলে তুমি বুঝতেও  পারতে না যে এইটা হাতি!) আর জিজ্ঞেস করলো, কেমন হয়েছে? অজগরের মতো শুঁড় দেখে নাক না সিটকে তুমি কিন্তু শিখিয়ে দিতে পারো আঁকার আসল পদ্ধতি। 

গল্প শোনাও

ধরে নিলাম তুমি প্রচুর বই পড়ো। শুধু পড়লেই হবে না! তুমি ছোটবেলায় যেসব রূপকথা, ভূতের গল্প আর ঠাকুরমার ঝুলি পড়ে/ শুনে এখন বেশ সিরিয়াস পাঠক হয়ে উঠেছো, সেসব গল্প শোনাও তোমার পিচ্চি ভাই/ বোনটাকে। দেখবে ওরা কেমন রসগোল্লার মতো চোখ বানিয়ে গল্প শোনে। আর সবচেয়ে মজার ব্যাপার হলো ওরা একটা গল্প বারবার শুনেও বোরিং হয় না! বরং গল্প পছন্দ হলে “আবার বলো, আবার বলো” বলে জ্বালাতে শুরু করে। 

এইতো, এই কাজগুলো কিংবা অন্য কিছুও করতে পারো তোমার ছোট ভাই/ বোনকে সাথে নিয়ে। দেখবে ওদের মাথাতেও কেমন চমৎকার সব আইডিয়া ঘুরপাক খায়। এভাবে তোমাদের কোয়ারেন্টাইন কিন্তু মন্দ কাটবে না! 

-জেবা তাহসিন 

এই রকম আরো পোস্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close