রাইটার্স ক্লাব স্পেশাল

গল্প- ফিরে দেখা স্মৃতি (১ম পর্ব)



“আমার হিয়ার মাঝে লুকিয়ে ছিলে দেখতে আমি পাই নি। তোমায় দেখতে আমি পাই নি। বাহির- পানে চোখ মেলেছি, আমার হৃদয়-পানে চাই নি”

পুরাতন ভাঙ্গা এক রেডিওতে রাত ৩ টায় বারান্দায় বসে গান শুনছিলেন আফজাল সাহেব। মাঝরাতে বারান্দায় বসে গান শোনা যেন তার নিত্যদিনের অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। তার মধ্যে গানের সুরের সাথে সঙ্গ দিচ্ছে অবিরত বৃষ্টির ধারা। সপ্তাহখানেক আগে শুরু হয় এই বৃষ্টি, কিন্তু থামার নাম-গন্ধ আজও নেই। আর এই বৃষ্টি যেন আফজাল সাহেবের পুরাতন স্মৃতি মনে করার সহায়ক। অবিরত বৃষ্টির জলের ধারার মতো আফজাল সাহেবের গাল বেয়ে যে অশ্রুর ধারা বইছে, তা তিনি খেয়ালই করেননি।

আফজাল সাহেব একজন সরকারি কর্মকর্তা ছিলেন। কিছুদিন হলো, তিনি চাকরি থেকে অবসর নিয়েছেন। স্ত্রী, সন্তান মারা যাওয়ার পর বাড়িতে তিনি এখন একাই থাকেন। আর তার দেখাশোনার জন্য থাকে করিম নামের একটা ২০ বছর বয়সী ছেলে। সুখেদুঃখে, আনন্দ-আবেগে করিম ছেলেটাই আফজাল সাহেবকে সঙ্গ দিয়ে যাচ্ছে। হঠাত করিমের ডাকে আফজাল সাহেবের ধ্যান ভাঙে।

“বাবা, বাবা প্লিজ তুমি একটু বুঝার চেষ্টা করো। বাবা, আফজাল ছেলে হিসেবে ভালো। তুমি দেখো, ও কিছুদিনেই তোমার মনে মতো হয়ে উঠবে।”
“তুই আমার সামনে থেকে চলে যা। আমি তোর মুখ আর দেখতে চাই না। তোর কথা ভেবে আমার নিজেরই লজ্জা করছে।”

“আসলে, বাবা আপনি যদি……….” হামিদার কথার মাঝে আফজাল সাহেব বলে উঠলেন।

“তুমি ভুলেও আমার মন গলানোর চেষ্টা করবে না। আমার কাছ থেকে ভুলিয়ে ভালিয়ে আমার মেয়েকে কেড়ে নিয়েছো। তোমার ভাগ্য ভালো এখনো তোমার হাতে হাতকড়া পড়ায় নি।” হামিদার বাবা রেগে আফজাল সাহেবকে বলে উঠলেন!!

অনেক চেষ্টা করেও আফজাল সাহেব আর হামিদা কিছুতেই তার বাবার মন রক্ষা করতে পারলেন না।
শেষমেশ না পেরে আফজাল বললেন,

Sadia Rahman

Student Learner

এই রকম আরো পোস্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close