ফিকশনরিভিউ

গল্প—দ্য শাইনিং-রিভিউ

বুক রিভিউঃ দ্য শাইনিং
লেখকঃ স্টিফেন কিং
অনুবাদকঃ তানজীম রহমান

হরর গল্পের ভক্তদের Must To Read একটা বই। জীবনের নানান সমস্যায় জর্জরিত জ্যাক টরেন্স। স্ত্রী ওয়েন্ডি ও ছেলে ড্যানিকে নিয়ে তার পরিবার।হঠাৎ চাকরি হারিয়ে জ্যাক যেন দিশেহারা হয়ে পরে।বন্ধু আর্লের সহযোগিতায় সে একটি চাকরি জোটায়।চাকরি টা একটু বিচিত্র। জ্যাককে তার পরিবারসহ একটি পুরনো “ওভারলুক” হোটেলে দীর্ঘ ছয়টি মাস কাটাতে হবে। হোটেলের কোন স্টাফ বা পর্যটকরা কেউই থাকবে না। প্রচন্ড শীত আর তুষারপাতের কারনে রাস্তা জমে যাবে। হোটেলের বয়লারগুলো ঠিকঠাক চালু রাখায় জ্যাকের মূল দায়িত্ব। কাছের শহরটা সেখান থেকে চল্লিশ মাইল দূরে। আশেপাশে কোন জন-মানবের ছায়া নেই। এরকম অবস্থায় জ্যাককে তার পরিবারসহ ওভারলুক হোটেলে দুনিয়া থেকে বিছিন্ন হয়ে থাকতে হবে।

ছোট্ট ড্যানির ছিল এক অদ্ভুত ক্ষমতা…মানুষের ভেতর প্রবেশ করার অদ্ভুত ক্ষমতা ছিল ছেলেটার। টনি নামে ড্যানির এক অদৃশ্য বন্ধু আছে। যে প্রতিনিয়ত ড্যানিকে নানা বিষয় সমাধান করে দেয়। বলা হয় এরকম মানুষের ভেতর জ্যোতি থাকে। শাইন বা চমক…সেখান থেকেই ‘দ্য শাইনিং ‘ নামটার উৎপত্তি।

হোটেলের প্রথম কয়দিন ভালোই কাটছিল টোরেন্স পরিবারের। কিন্তু কিছুদিন পর থেকেই ওভারলুক দেখাতে থাকে তার আসল রূপ।ছোট্ট ড্যানি কি পারবে তার পরিবারকে রক্ষা করতে..? বইটি পড়ে ঝটপট জেনে ফেলুন..!

বইটি পড়া শুরু করলে আশা করি পড়া শেষ না হওয়া পর্যন্ত পাঠক মন্ত্রমুগ্ধ হয়ে রবেন। অসম্ভব সুন্দর উপন্যাসটির প্লট। সেই সাথে প্রাঞ্জল বর্ননা আর কাহিনির গতিময়তা আপনাকে একটুও বোর করবে না। একবুক টিব টিব করা উত্তেজনা বিরাজ করতে থাকবে। যারা পড়বেন তাদের প্রতি অনুরোধ…ঠিকঠাক ভাবে কাহিনিটার ভেতর প্রবেশ করতে চাইলে অন্তত রাতে পড়ার চেষ্টা করবেন। কারণ নিস্তব্ধ রাতে জ্যাক ও তার পরিবারের ওভারলুকে বাস করাটা যেন নিজের ভেতর অনুভব করবেন..!

টপিকঃ

এই রকম আরো পোস্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close