ডিজিটাল মার্কেটিংব্যবসা ও উদ্যোগস্কিল ডেভলপমেন্ট

ইন্সটাগ্রাম মার্কেটিং – পর্ব (২)

প্রথম পর্বে ইন্সটাগ্রাম একাউন্ট গ্রো করার বেশ কিছু টিপ্স দিয়েছিলাম৷ এবারের পর্বে আরও কিছু ইন্সটাগ্রাম হ্যাক্স নিয়ে কথা বলবো যা আপনার একাউন্টের ফলোয়ার্স বাড়াতে সাহায্য করবে।

হ্যাশট্যাগ এর জাদু

হ্যাশট্যাগ জিনিসটা ইন্সটাগ্রাম একাউন্টের ফলোয়ার্স বাড়াতে বেশ সাহায্য করে৷ সব সময় মনে রাখবেন, হ্যাশট্যাগ = ফলোয়ার। সঠিক হ্যাশ ট্যাগ ব্যবহার করলে পোস্ট রিচ অনেক বাড়ে আর একাউন্টেরও প্রচার হয়। আসুন তবে এখন জেনে নেই হ্যাশট্যাগের ব্যবহার –

১. নিজের বায়োতে হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করুন। প্রথমে নিজের সম্পর্কে ভাবুন, নিজের কী কী স্কিল আছে, তা বের করুন। আপনার ব্র্যান্ডের কাজ কী, তা চিন্তা করুন।তারপর আপনাকে কিংবা আপনার কোম্পানিকে বর্ননা করে, এমন কিছু শব্দ খুঁজে বের করুন। যেমন –

আমি হরর স্টোরি লিখি, কন্টেন্ট ক্রিয়েটর, আমার তিনটা বই আছে। এবং আমার স্টার্টআপ প্রজেক্টের নাম লিপিকরণ। তো আমি আমার বায়োতে হ্যাশট্যাগ দিয়ে এভাবে লিখতে পারি –

horror_story_writer

author

content_creator

founder at #lipikoron.

এরকম আপনি নিজের বায়োতে নিজের বিশেষত্ব গুলো হ্যাশট্যাগ দিয়ে লিখে দেবেন। কোম্পানির ক্ষেত্রেও একই পদ্ধতি অবলম্বন করুন। তাহলে হ্যাশট্যাগ দিয়ে ঐ শব্দগুলো লিখে যখন কেউ সার্চ দিবে, তখন আপনার প্রোফাইলটাও চলে আসবে।।আর আপনার প্রোফাইল কিংবা সার্ভিস যদি ইউনিক এবং মানসম্মত হয়, তাহলে সহজেই নজর কাড়তে পারবেন। এবং ফলোয়ার্সও বাড়বে।

২. ইন্সটা স্টোরিতে হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করুন। এটাও খুব কাজে লাগে।নির্দিষ্ট কিওয়ার্ড লিখে সার্চ দিলেই আপনার প্রোফাইল চলে আসবে। আর হ্যাঁ,দিনে অন্তত তিনটি স্টোরি দেয়ার চেষ্টা করুন।

৩. আপনার নিশ / ব্র্যান্ড / প্রোডাক্ট রিলেটেড পপুলার হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করুন। বাংলা, ইংরেজী এবং বাংলিশ হ্যাশট্যাগ লিখতে পারেন। তবে তা যেনো অবশ্যই ত্রিশটার বেশী না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখুন। আর হ্যাঁ,ক্যাপশনে হ্যাশট্যাগ দেয়াটা অনেক সময় আগোছালো দেখায়। আপনার যদি আগোছালো ক্যাপশন পছন্দ না হয় এবং সিম্পল জিনিস পছন্দ করে থাকেন, তবে প্রথম কমেন্টে হ্যাশট্যাগগুলো ব্যবহার করুন।

৪. যে দিন পোস্ট করবেন, সে দিনটার নাম হ্যাশট্যাগে ব্যবহার করুন। যেমন – শুক্রবারে কোন কন্টেন্ট পোস্ট করে থাকলে “#friday ” লিখুন।

হ্যাশট্যাগ ছাড়াও ইন্সটা ফলোয়ার বাড়ানোর আরও কিছু উপায় আছে। উপায়গুলো হলো –
১. নিজের ইন্সটা বায়োতে আপনার কোম্পানির / ব্র্যান্ডের নামে খোলা প্রোফাইলটি ট্যাগ করুন। এতে ব্যাপারটা মানুষের নজরে আসবে এবং ফলোয়ার্স বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে।

২. বায়োতে এবং ক্যাপশনে স্টাইলিশ ও ডিফ্রেন্ড ফন্ট ব্যবহার করুন। দেখতে বেশ ইউনিক লাগবে। এক্ষেত্রে ” Lingojam ” ওয়েবসাইটটি আপনাকে সাহায্য করতে পারে। নানান রকম কুল আর ফ্যান্সি ফন্ট আছে এখানে। আপনার ক্যাপশনটি এখানে লিখে দিয়ে খুব সহজেই নানান স্টাইলে কনভার্ট করে নিতে পারবেন।

৩.প্রতিদিন অন্তত একবার পোস্ট করুন।

৪. ভিডিও ব্যবহার করুন।
৫. ইন্সটাগ্রাম এঙ্গেজমেন্ট গ্রুপগুলিতে জয়েন করুন। এর অপর নাম ” Instagram pods “. এগুলো এমন একটা গ্রুপ,যেখানে আপনার মতো আরও অনেকেই গ্রুপ এঙ্গেজমেন্টে বিশ্বাসী। এরা একে অপরের প্রোফাইলে লাইক, কমেন্ট এবং ফলো করে। ফলে এ্যাঙ্গেজমেন্ট বাড়ে এবং একাউন্ট পপুলার হয়। খারাপ না ব্যাপারটা! অন্তত টাকা দিয়ে ফলোয়ার্স কেনার থেকে অনেক বেটার এটা।

৬. বিভিন্ন পপুলার একাউন্টে ক্রিয়েটিভ কমেন্ট করুন, গঠনমূলক সমালোচনা করুন, প্রশংসা করুন।।এতে মানুষ আপনার প্রোফাইলটি নিয়ে কৌতুহলী হবে। প্রোফাইল ঘাটবে এবং ভালো লাগলে ফলো করবে।
৭. অন্যের স্টোরিতে ফিচারড হবার চেষ্টা করুন। এতে আপনার একাউন্টটি প্রমোট হবে।
৮. মাঝে মাঝে ফলোয়ার্সদের সারপ্রাইজ দিন, বেস্ট একটিভ ফলোয়ার্স চ্যুজ করে উপহার দিন তাকে। এর ফলে পারস্পরিক সম্পর্কও ভালো হবে আর সবার মাঝে একটা প্রেষনাও আসবে একটিভ হবার জন্য, যা পোস্ট এ্যাঙ্গেজমেন্ট এবং ফলোয়ার্স বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে।

৯. IGTV সিরিজ ক্রিয়েট করুন।

১০. বড় বড় ক্যাপশন দিন।

১১. নিজের প্রোডাক্ট এবং কন্টেন্টের কোয়ালিটির দিকে খেয়াল করুন, মনে রাখবেন,ভালো কোয়ালিটির জিনিসের প্রসার সব সময় থাকে। আর একটা জিনিসের কোয়ালিটি যখন খারাপ হয়,তখন ঐ জিনিসটা যতোই প্রচার করা হোক না কেন, এক সময় ঠিকই মুখ থুবড়ে পড়বে।

একটুখানি ইন্সটাগ্রাম পরিসংখ্যান

১.প্রতিমাসে এক বিলিয়ন একটিভ ইউজার ইন্সটাগ্রাম ব্যবহার করে।
২. ফেসবুকের পর এটা সবচেয়ে বেশী পপুলার।
৩. ৮৩℅ ইন্সটা ইউজার প্রতিদিন নতুন নতুন প্রোডাক্ট আর সার্ভিস ডিসকভার করে।
৪. ফেসবুকের তুলনায় ইন্সটাগ্রামে চার গুণ বেশী ইন্টারাকশন করা সম্ভব।
৫. ৮০% মানুষ ইন্সটাগ্রাম থেকে সেবা / পণ্য নেয়।
৬. ৫০% ইন্সটাগ্রামার একই রকম ব্যবসা করে।

৭. ইন্সটাগ্রামে ৫২% ফিমেল ইউজার আর বাকি ৪৮% পুরুষ।
৮. ২০০ মিলিয়ন মানুষ ইন্সটাগ্রামে একবার অন্তত বিজনেস প্রোফাইল দেখে।
৯. ১৩০ মিলিয়ন ইউজার প্রতিমাসে শপিং করে।
১০. ইন্সটাগ্রামের সবচেয়ে পপুলার কন্টেন্ট / টিউটোরিয়াল এর শিরোনাম শুরু হয় ” how to… ” দিয়ে।

প্রিয় পাঠক, উপরে দেয়া পরিসংখ্যানগুলো ভালো মতো খেয়াল করুন, বিশ্লেষণ করুন আর কাজে লাগান।সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং, প্রোডাক্ট ব্র্যান্ডিং আর পণ্য ক্রয় বিক্রয়ের জন্য ইন্সটাগ্রাম কিন্তু বেশ সম্ভাবনাময় এবং কাজের একটা প্ল্যাটফর্ম। একটু সময় দিয়ে, মাথা খাটিয়ে কাজ করে আর কিছু টেকনিক অবলম্বন করলে আপনি অনেক টাকা আয় করতে পারবেন এই ইন্সটাগ্রাম থেকে।

টপিকঃ

Neela Moni Goshwami

জন্ম ২৭ ডিসেম্বর , ১৯৯৬, কুমিল্লা। ভীষন হাসিখুশী আর খানিকটা পাগল টাইপের এই মেয়েটা স্বপ্ন দেখতে ভালোবাসে খুব। তার প্রিয় শখ বই পড়া, লেখালেখি করা আর ছবি আঁকা এবং প্রিয় স্বপ্ন নিজের লেখা একগাদা বই হাতে নিয়ে ঘুরে বেড়ানো! ভবিষ্যতে সে একজন সত্যিকারের ভালো লেখিকা হতে চায়। আর কাজ করতে চায় সুবিধাবঞ্চিত শিশু আর আশ্রয়হীন বৃদ্ধদের জন্য। বর্তমানে সে ন্যাশনাল কলেজ অফ হোম ইকোনমিক্স থেকে শিশু বিকাশ ও সামাজিক সম্পর্ক বিভাগে চতুর্থ বর্ষে পড়াশোনা করছে। লেখিকার " তাকে ভালোবেসে ", " কঙ্কাল সরোবর " এবং " এটিকুয়েটা " নামে তিনটি বই আছে।।তাছাড়া তিনি " রাইটার্স ক্ল্যাব বিডি " প্রজেক্টটির ফাউন্ডার।

এই রকম আরো পোস্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close